চট্টগ্রামশনিবার , ৬ জানুয়ারি ২০২৪
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন বিচার
  4. আন্তর্জাতিক
  5. কৃষি
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গণমাধ্যম
  9. চাকরির খবর
  10. জাতীয়
  11. ধর্ম
  12. বাণিজ্যিক
  13. বাংলাদেশ
  14. বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
  15. বিনোদন

এবারের নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক নয় বলা যাবে না: সিইসি

deshbarta news
জানুয়ারি ৬, ২০২৪ ৯:৫০ অপরাহ্ণ
Link Copied!


বাংলাদেশ

google_news

এবারের নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক নয় বলা যাবে না: সিইসি

৬ জানুয়ারি, ২০২৪ ২০:০৫ | আপডেট: ৬ জানুয়ারি, ২০২৪ ২০:১০

এবারের-নির্বাচনকে-অংশগ্রহণমূলক-নয়-বলা-যাবে-না-সিইসি

সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। ছবি: পিআইডি

নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালনে অবহেলা, শৈথিল্য, অসততার ব্যাপারে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে সিইসি বলেন, ‘কোনো প্রার্থী বা প্রার্থীর পক্ষে জাল ভোট, ভোট কারচুপি, ব্যালট ছিনতাই, অর্থের লেনদেন ও পেশিশক্তির সম্ভাব্য ব্যবহার কঠোরভাবে প্রতিহত করা হবে। এ বিষয়ক কোনো তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিক সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করা হবে। প্রয়োজনে কেন্দ্র বা নির্বাচনি এলাকার ভোটগ্রহণ সামগ্রিকভাবে বন্ধ করে দেয়া হবে।’

নির্বাচনের প্রাতিষ্ঠানিক পদ্ধতিগত প্রশ্নে মত-বিরোধের কারণে এবারের নির্বাচনে কাঙ্ক্ষিত রাজনৈতিক অংশগ্রহণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তারপরও এবারের নির্বাচনকে ‘প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন ও অংশগ্রহণমূলক নয়’ বলে আখ্যায়িত করতে নারাজ তিনি।

সিইসি বলেন, ‘এবারের নির্বাচনে সর্বজনীনতা প্রত্যাশিত মাত্রায় হয়নি। তারপরও ২৮টি দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে। নির্বাচনে মোট ২৯৯ আসনে ১৯৭১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ফলে ফলে নির্বাচনকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন ও অংশগ্রহণমূলক নয় মর্মে আখ্যায়িত করা যাবে না।’


বাংলাদেশ

google_news

এবারের নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক নয় বলা যাবে না: সিইসি

৬ জানুয়ারি, ২০২৪ ২১:০১০| আপডেট: ৬ জানুয়ারি, ২০২৪ ২১:৪৮

এবারের-নির্বাচনকে-অংশগ্রহণমূলক-নয়-বলা-যাবে-না-সিইসি

সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। ছবি: দৈনিক দেশবার্তা 

নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালনে অবহেলা, শৈথিল্য, অসততার ব্যাপারে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে সিইসি বলেন, ‘কোনো প্রার্থী বা প্রার্থীর পক্ষে জাল ভোট, ভোট কারচুপি, ব্যালট ছিনতাই, অর্থের লেনদেন ও পেশিশক্তির সম্ভাব্য ব্যবহার কঠোরভাবে প্রতিহত করা হবে। এ বিষয়ক কোনো তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিক সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করা হবে। প্রয়োজনে কেন্দ্র বা নির্বাচনি এলাকার ভোটগ্রহণ সামগ্রিকভাবে বন্ধ করে দেয়া হবে।’

নির্বাচনের প্রাতিষ্ঠানিক পদ্ধতিগত প্রশ্নে মত-বিরোধের কারণে এবারের নির্বাচনে কাঙ্ক্ষিত রাজনৈতিক অংশগ্রহণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তারপরও এবারের নির্বাচনকে ‘প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন ও অংশগ্রহণমূলক নয়’ বলে আখ্যায়িত করতে নারাজ তিনি।

সিইসি বলেন, ‘এবারের নির্বাচনে সর্বজনীনতা প্রত্যাশিত মাত্রায় হয়নি। তারপরও ২৮টি দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে। নির্বাচনে মোট ২৯৯ আসনে ১৯৭১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ফলে ফলে নির্বাচনকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন ও অংশগ্রহণমূলক নয় মর্মে আখ্যায়িত করা যাবে না।’

রোববার সন্ধ্যায় দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। সন্ধ্যা ৭টা থেকে শুরু হওয়া সিইসির এ ভাষণ জাতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে সম্প্রচার হয়।

‘সংবিধানে দেশের জনগণকে রাষ্ট্রের মালিক ঘোষণা করা হয়েছে উল্লেখ করে’ সিইসি বলেন, ‘সেই মালিকানা প্রতিষ্ঠার অন্যতম প্রধান মাধ্যম হচ্ছে সংসদ নির্বাচন। রাত পোহালে সেই নির্বাচন। ২২ মাস আগে নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব গ্রহণ করে আগ্রহী সকল রাজনৈতিক দল, বুদ্ধিজীবী সমাজ, শিক্ষাবিদ, নাগরিক সমাজ, সিনিয়র সাংবাদিক এবং নির্বাচন বিশেষজ্ঞসহ বিভিন্ন অংশীজনের সঙ্গে একাধিকবার সংলাপ ও মতবিনিময় করেছি। তাদের মতামত শুনে, সুপারিশ জেনে আমাদের অবস্থান তাদের কাছে ব্যাখ্যা করেছি। নির্বাচনে অনাগ্রহী নিবন্ধিত সকল রাজনৈতিক দলকেও সংলাপে একাধিকবার আমন্ত্রণ জানিয়েছি। আমন্ত্রণে তারা সাড়া দেননি। তারপরও নির্বাচনের লক্ষ্যে আমরা প্রস্তুতি চূড়ান্ত করেছি।’

কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘নির্ধারিত সময়ে ও নির্ধারিত পদ্ধতিতে সংসদের সাধারণ নির্বাচন আয়োজনে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। নির্বাহী বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসমূহের সহায়তা নিয়ে এ আয়োজন সম্পন্ন করা হয়ে থাকে।

‘সরকার আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও শান্তিপূর্ণ করার লক্ষ্যে সুস্পষ্ট প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে বারংবার। কমিশনও তার আয়ত্বে থাকা সর্বোচ্চ সামর্থ্য দিয়ে এবং সরকারের কাছ থেকে আবশ্যক সকল সহায়তা নিয়ে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ করার বিষয়ে সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে।’

নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী সকল প্রার্থী ও ভোটারকে নির্বাচন-বিষয়ক বিধি-বিধান অনুসরণ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনি দায়িত্বে নিয়োজিত সকল কর্মকর্তাকেও আইন ও বিধি- বিধান যথাযথভাবে অনুধাবন, প্রতিপালন ও প্রয়োগ করে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব পালন করতে হবে। নির্বাচন-বিষয়ক আইন ও বিধি-বিধান বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ভোটকেন্দ্রের পারিপার্শ্বিক শৃঙ্খলাসহ প্রার্থী, ভোটার, নির্বাচনি কর্মকর্তা এবং সর্বসাধারণের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন।’

নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালনে অবহেলা, শৈথিল্য, অসততার ব্যাপারে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে সিইসি বলেন, ‘কোনো প্রার্থী বা প্রার্থীর পক্ষে জাল ভোট, ভোট কারচুপি, ব্যালট ছিনতাই, অর্থের লেনদেন ও পেশিশক্তির সম্ভাব্য ব্যবহার কঠোরভাবে প্রতিহত করা হবে। এ বিষয়ক কোনো তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিক সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করা হবে। প্রয়োজনে কেন্দ্র বা নির্বাচনি এলাকার ভোটগ্রহণ সামগ্রিকভাবে বন্ধ করে দেয়া হবে।’

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।