চট্টগ্রামরবিবার , ৭ এপ্রিল ২০২৪
  1. অগ্নিকাণ্ড
  2. অপরাধ
  3. অপহরণ
  4. অর্থনীতি
  5. আইন বিচার
  6. আতঙ্ক
  7. আত্মহত্যা
  8. আন্তর্জাতিক
  9. আবহাওয়া বার্তা
  10. ঈদুল আযহা উদযাপন
  11. ঈদুল ফিতর উদযাপন
  12. উচ্ছেদ
  13. উন্নয়ন
  14. কক্সবাজার
  15. কৃষি
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পত্নীতলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত মা-ছেলের জানাযায় জনতার ঢল

deshbarta news
এপ্রিল ৭, ২০২৪ ২:২৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

  1. পত্নীতলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত
    মা-ছেলের জানাযায় জনতার ঢল

মোঃ রমজান হোসেন নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ

নওগাঁর পত্নীতলায় সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত মা রেশমা বেগম (৩০) ও ছেলে ফারাবি হোসেনের (৫ মাস) জানাযায় শোকে মুহ্যমান জনতার ঢল নামে। শুক্রবার (৫ এপ্রিল) বাদ জুম্মা উপজেলার চকদোচাই বাবনাবাজ গ্রামে ওইগ্রামের কৃতি সন্তান বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেক্ট্রিক্যাল এ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ফিরোজ আলীর (৩৫) নিজ বাড়ির খলিয়ানে এ নামাজে জানাযার আয়োজন করা হয়। মা রেশমার বাবার বাড়ি জেলার মহাদেবপুর উপজেলার এনায়েতপুর ইউনিয়নের গোসাইপুর গ্রামে।

জানাযা পূর্ব সমাবেশে ফিরোজ আলী এক আবেগঘন বক্তব্য দেন। বক্তব্যে তিনি দূর্ঘটনার বিবরণ দিলে উপস্থিত জনতা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার সকালে তিনি তার কর্মস্থল পাবনা থেকে ঈদের ছুটিতে বাড়ি আসার জন্য রাজশাহী থেকে একটি সিএনজিচালিত অটোটেম্পুযোগে স্বপরিবারে নজিপুর আসছিলেন। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজশাহী-নওগাঁ আঞ্চলিক মহাসড়কের বিজয়পুর নামক স্থানে পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা মালবোঝাই একটি পিকআপ ভ্যান তাদেরকে চাপা দেয়। এতে তাদের টেম্পু দুমড়ে মুচড়ে যাায়। ঘটনাস্থলেই মারা যায় তাদের পাঁচ মাস বয়সী ছেলে ফারাবি হোসেন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে ফিরোজ আলী, তার স্ত্রী রেশমা বেগম ও মেয়ে ফারিয়ার (৮) অবস্থার অবনতি ঘটলে তাদেরকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র আইসিইউতে পর্যবেক্ষণে থাকা অবস্থায় রাত ৯টার দিকে রেশমা বেগমের মৃত্যু হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন মেয়ে ফারিয়ার অবস্থাও আশংকাজনক। জানাযা শেষে ফিরোজ আলী আবার চিকিৎসা নিতে ফিরে যাবেন রাজশাহী।

বক্তব্যে ফিরোজ আলী এ দূর্ঘটনার জন্য কাউকে দায়ি করেননি। তিনি জানান যে পিকআপ ভ্যান তাদেরকে চাপা দেয় তার চালক তাদেরকে দেখতে পাননি। দূর্ঘটনার পর কয়েকজন তাদের মোবাইলফোনসহ অন্যান্য মালামাল লুট করে। তবে একজন ভালো মানুষ তাদের অন্যান্য মালামাল হেফাজত করেন এবং তাদেরকে উদ্ধার করে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখান থেকে রাজশাহীও যান তিনি। এছাড়া তিনি জানাযায় গ্রামের বাড়িতেও এসেছেন। তার প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

মা-ছেলের জানাযায় এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। তাদের অকাল মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছাঁয়া নেমে আসে। পৃথক নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাদের দাফন করা হয়।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।